Monday, October 3, 2022
Homeগল্পপানিপড়া

পানিপড়া

লিখেছেনঃ আব্দুল মতিন জাকির

গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিরা প্রায় সকলেই উপস্থিত। ইমাম সাহেবকেও ডাকা হয়েছে।তিনিও এসেছেন।  সবাইকে সালামদিয়ে, ডাক্তার সাহেবের ডানদিকের হাতল ওয়ালা চেয়ারটায় তিনি বসলেন।  ডাক্তার সাহেবকে  কেমনযেন একটু অপ্রস্তুত দেখাচ্ছে, তিনি এদিক সেদিন তাকাচ্ছেন। সবাই অনুচ্চ আওয়াজে নিজেদের ভেতর কথাবলছে। চেয়ারম্যান সাহেবের জন্য সকলে অপেক্ষমান, হুজুরের পাশের আসনটা এজন্যই খালি পড়ে আছে। বেলা পড়েগেছে,বাদী,বিবাদী ফরিয়াদী সকলেই, খোলা ময়দানে উপস্থিত। এমন সময় – হন্তদন্ত হয়ে খাঁ বাড়ির মনুমিয়া ছোটেএল।  হাতে একটা পানিরগ্লাস।  হুজুরের কানেকানে কিছু একটা বল্তেই হুজুর পানিটা হাতে নিয়ে দমকরতে লাগলেন।হুজুরের পান খাওয়া মুখে পানিতে ফুঁ দেয়ার দৃশ্য দেখে,ডাক্তার সাহেবের বিরক্তি চরমে পৌছেগেল। তিনি মনুমিয়াকে জিজ্ঞেস করলেন ” কিসের পানিপড়া “মনু?
মনু ডাক্তার সাবের কানেরকাছে মাথা এনে আস্তে করে বল্ল — ডেলিভারি কেস, এবারে একেবারে ধৈর্য্যচ্চুতি ঘটলো ডাক্তার সাহেবের  —
“এখনো তোমরা এসব কুসংস্কার মানো?
জ্বে?
মনুমিয়ার চেহারা ফেকাসে হয়ে এল।
আরে ডেলিভারির ব্যাপার হয়েথাকলে ডাক্তারের কাছে যাও, ওষুধ দেবে!  বিশেষ প্রয়োজনহলে হাসপাতালে নিয়াযাও !পানির গ্লাসনিয়া হুজুরের কাছে দৌড়াইয়া   আইছো কেন?
হুজুরের পানি পড়ায় কী হবে?
এখনো তোমরা ধর্মের এসব গোঁড়ামি ছাড়তে পারলানা? মনুমিয়া ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে চুপচাপ দাঁড়িয়ে আছে।
ততক্ষণে হুজুর পানিতে দম করে মনুর হাতে দিয়ে দিয়েছেন।  পানি নিয়ে সে দ্রুত  বাড়ির দিকে যাচ্ছে।
এবার ইমাম সাহেব ডাক্তার সাহেবের দিকে ফিরলেন, “আপনিকি বলছেন — ডেলিভারী কেইসে পানি পড়ায় কিছুই হয়না? না কী হবে? পানিতো পানী -ই! এবার হুজুর একটু উত্তেজিত ভাবনিয়ে তর্জনী উঁচিয়ে —  আপনি একটা” কুত্তার বাচ্চা “!! খাস বাংলায় হুজুর একটা গালি রিলিজ করে দিলেন।
আর যায় কোথায়! এবার ডাক্তার সাহেব প্রচন্ড রেগেগিয়ে,  বসাথেকে উঠে, হুজুরকে গালাগাল করতে করতে মারতে উদ্যত হলেন। ওনাকে সামলানো কঠিন হয়ে পড়ল। হুজুর নির্বিকার।  স্থিরহয়ে বসে আছেন।
কয়েকজনে মিলে ডাক্তারকে ধরে,  স্থির করিয়েছেন মাত্র,নিজের চেয়ারে বসতে বসতে তিনি বল্লেন, আজকেএই মৌলভীর বিচার আগে করতেহবে। সবাই ডাক্তারের কথায় সায় দিল।এই হট্টগোল মধ্যে।কানুমিয়া মেম্বার দাঁড়িয়ে  সবাইকে শান্তহতে বল্লেন, একজন আলেমহয়ে  এলাকার একজন সম্মানিত লোকে রে আপনিযে জঘন্য এই গালিটি দিলেন —  একজন ইমাম হয়ে আপনার কাছে কী এটা শোভা পায়?  এখন আমরা এলাকা বাসী যদি এই সিদ্ধান্ত নেই, যে আমরা  আর আপনার পেছনে নামাজ পড়বোনা, তবে কী হবে? হ – ঠিক ঠিক!!  পেছনথেকে অনেকেই সমর্থন করলেন কানুমেম্বারকে।  এই হট্টগোলের মধ্যেই চেয়ারম্যান সাহেব কখন এসে আসন গ্রহন করেছেন অনেকে তা – খেয়ালই করেনি।  গুরুগম্ভীর আওয়াজে, হাতের সিগারেটটা ফেলেদিয়ে  চেয়ারম্যান সাহেব দুইহাত উঁচিয়ে  — ঐ মিয়ারা তোমরা শান্তহও।

পিনপতন নিরবতা দেখাদিল সভায়।
আমি সব শুনেছি, একজন আলেম মসজিদের সম্মানিত ইমামহয়ে আপনি রাগের মাথায় আমাদের এলাকার সম্মানিত ব্যাক্তি,  একজন ডাক্তার সাহেবকে যেই খারাপ কথাটি বলেছেন,এজন্য  এখানে সকলের সামনে আপনাকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে। এরপর আমরা বিবেচনা করবো, আপনাকে ইমাম হিসেবে রাখা হবে কি হবেনা, ইমাম সাহেব এতক্ষণ চুপচাপ বসেছিলেন, তিনি মোটেও বিচলিত নন।

এবার স্থির গলায় গলার আওয়াজকে  স্বাভাবিক  করে তিনি বল্লেন,  জ্বী —-
আপনারা ঠিকই বলেছেনঃ ক্ষমা প্রার্থনা করা আল্লাহ্পাক পছন্দকরেন।
ডাক্তার সাহেব এলাকার একজন সম্মানী মানুষ, আমার এই কথায় তিনি কস্ট পেয়ে থাকলে, আমি ওনার কাছে এবং আপনাদের সকলের কাছে  ক্ষমাপ্রার্থী। তবে –আমি ওনাকে একটা বিষয় বুঝানোর জন্য ই, খারাপ এই শব্দটা উচ্চারণ করেছি।

একজন আলেম হইয়া একজন সম্মানিত  মানুষকে আপনি গালিদিয়া কী বুঝাইতে চান?
এটাইকি ইসলামের শিক্ষা?
উত্তেজিত হয়ে প্রশ্ন করলেন কানু মেম্বার।
ইমাম সাহেব বিড়বিড় করে মনেমনে কি যেন পড়লেন, দেখুন —
যদিও কুকুরের কিছু সৎগুণ আছে।  তবুও কুকুরকে আমরা একটা নাপাক প্রাণী বলেই জানি।
একটা নাপাক প্রাণীর নাম, মুখ দিয়ে উচ্চারণ করার কারনে যদি একজন সুস্থ মানুষের শরীরের রক্ত টগবগ করে উঠতে  পারে, একজন মানুষ প্রচন্ডভাবে রেগেযেতে পারে, ভরা মজলিশের ভেতর আরেকজনকে আঘাত করার জন্য তেড়ে আসতে পারে!
“মহান আল্লাপাকের “পবিত্র কুরআন, আল্লাহর গুনবাচক উত্তম নামের ভেতরকি কোন গুন, থাকতে পারেনা? যে গর্ভবতী একজন সন্তান সম্ভবা ” মা “সেই পানি পানকরলে আল্লাহর রহমতে তাঁর শরীরে এর প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হবে??
সুবহানাহ! সুবহানাহ!! বলে সবাই চেঁচিয়ে উঠল।
সবার আগে কানুমেম্বার এসে ইমাম সাহেবকে জড়িয়ে ধরলেন।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments