হিজড়াদেরকে দক্ষ জনশক্তি হিসেবে গড়ে তোলা সময়ের দাবী

0
262
হিজড়াদেরকে দক্ষ জনশক্তি

মোঃ শামসুল আকরাম: হিজড়া বা তৃতীয় লিঙ্গের মানুষরা আমাদের সমাজে আজকাল সবচেয়ে বড় চাঁদাবাজ হিসেবে খ্যাত। প্রতিনিয়ত শহর ও গ্রামের মানুষদের সাথে বিভিন্নভাবে হয়রানি করেই চলছে তারা।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, নানান রাজনৈতিক নেতা ও স্থানীয় প্রভাবশালী গোষ্ঠীর গোপন ছত্রছায়ায় এরা সাহসী হয়ে উঠছে। এদের হয়রানির শিকার হয়নি এমন কোন শ্রেণী-পেশার মানুষ নেই বললেই চলে। এরা হুট করেই আমাদের সামনে এসে হাজির হয় আর অনেক ঝামেলা করে, টাকা না দিতে চাইলে উলঙ্গ হতে চায়, বিশ্রী ভাষায় গালাগালি করে।

এরা বলে সরকার আমাদের পারমিশন দিয়েছে। পুলিশ এর কথা বললে বলে পুলিশ আমাদের কিছুই করবে না। এদেরকে কি আসলেই পুলিশ বা সরকার অনুমতি দিয়েছে?

-না। অনুমোদন নেই। তবে এদের বিষয়ে প্রশাসনের নিরব ভূমিকা সত্যিই দুঃখজনক।

ব্যক্তিগতভাবে আমি তাদের হয়রানির শিকার হয়েছি কয়েক দফায়। তবে আমি তাদের কোন ঝামেলায় পড়ার আগেই কিছু টাকা দেই। কারণ আমি জানি তাদের এই চাঁদাবাজি কিংবা হয়রানি করার জন্য আমরাই উস্কে দিয়েছি। আমাদের সমাজ এর পিছনে দায়ী।

গত ২ এপ্রিল, পাসপোর্ট অফিস থেকে বাসায় ফিরছিলাম। গ্রীণরোডে দেখলাম একদল হিজড়া দোকানগুলো থেকে চাঁদাবাজি করতেছে। আমি দাড়িয়ে পরিবেশ বোঝার চেষ্টা করলাম। সিপি ফাইভ স্টারের বিপরীতে এক সিঙ্গাড়া বিক্রেতার কাছে তারা যে টাকা দাবি করে, সেটা দিতে অস্বীকার করলে হিজড়াদের অত্যাচারে এক পর্যায়ে দোকানী কাঁদতে শুরু করলেন। দোকানী এটা বুঝাতে চেয়েও ব্যর্থ হলেন যে এখন করোনাকালীন সময়ে বিক্রি একদমই নাই। তোমরা অল্প টাকা নিয়ে যাও।

এই পরিস্থিতির জন্য আসলে দায়ী কে? আমাদের নীতি নির্ধারকরাই তো তাই না? কেন জানেন? কারণ হিজড়াদেরকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন করা হচ্ছে না এবং তাদের কাজের ব্যবস্থা করা হচ্ছে না। তাদেরকে দক্ষ জনশক্তি হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে না। ফলে তারা নানা রকমের হয়রানিমূলক কাজ-কর্মে যুক্ত হচ্ছে।

আমাদের সরকারের কিছু কর্মসূচিতে হিজড়া তথা তৃতীয় লিঙ্গের প্রতি সহযোগিতার চিত্র দেখা যায়। তবে তা শুধু একটা দিবস পালনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে। এখন সময় এসেছে এদের পূনর্বাসনের ব্যবস্থা করা। তাদেরকে স্বাভাবিক মানুষের মত জীবন-যাপনের সুযোগ করে দেওয়া। সরকারের একার পক্ষে এটা সম্ভব না। আমরা সবাই যদি সহযোগিতা করি তাহলেই কেবল সম্ভব।

আমরা যে যে ধর্মই চর্চা করি না কেন সবার আগে মানুষ হিসেবে আমাদের কিছু কর্তব্য আছে যা আমরা এড়াতে পারবো না। ওরা নিজের ইচ্ছায় হিজড়া হয়ে জন্ম নেয়নি। সৃষ্টিকর্তা নিশ্চয়ই ওদের কেও কোন না কোন কল্যাণ হিসেবেই আমাদের জন্য সৃষ্টি করেছেন। তারাও সমাজেরই একটি অংশ, এটা ভুলে যাওয়ার অবকাশ নেই।

ওরা আমাদেরই কারো না কারো ভাই-বোন। এদেরকে হিজড়া না বলে হিংসা না করে ভাই-বোন হিসেবে একটু ভালবাসুন, মানুষের মত সম্মান করতে শিখুন, দেখবেন ওরা হাসি-খুশিতে জীবন-যাপন করতে পারবে।

বিশ্বাস করেন, এরা সমাজে প্রতিষ্ঠিত হলে সমাজটা সুন্দর হবে। আর আমরা বেঁচে যাবো সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে। তাই আসুন, আমরা সবাই মানুষ পরিচয়ে পরিচিত হই, ওদেরকেও মানুষের মর্যাদা দেই।

লেখকঃ প্রকৌশলী ও সাংবাদিক;
সম্পাদক ও প্রকাশক, BDTone24.com

প্রতিউত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন